BCS written Preparation (Bangla) (বাংলা)

বাংলা ব্যাকরণ

ব্যাকরণঃ ব্যাকরণের ব্যুৎপত্তি গত রূপ- বি+আ+কৃ+অন। এর মূল অর্থ- “বিশেষভাবে বিশ্লেষণ”।

বাংলা ব্যাকরণের আলোচ্য বিষয়াবলীঃ 

  1. ধ্বনিতত্ত্বঃ এটি মূলত ধ্বনি, উচ্চারণনীতি, উচ্চারণের স্থান, ধ্বনি পরিবর্তন, সন্ধি, ণ-ত্ব ও ষ-ত্ব বিধান ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করে।
  2. শব্দতত্ত্বঃ এটি মূলত শব্দ, শব্দের গঠন, বচন, লিঙ্গ, কারক, পুরুষ, উপসর্গ, প্রত্যয়, বিভক্তি, সমাস, ক্রিয়া প্রকরণ ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করে।
  3. বাক্যতত্ত্বঃ এটি মূলত বাক্যের সঠিক গঠন প্রণালি, পদক্রম, পদের স্থান, পদ পরিবর্তন, বাগধারা, বাক্য সংযোজন, বাক্য সংকোচন, প্রবাদ- প্রবচন, বিরামচিহ্ন ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা করে।
  4. ছন্দ ও অলংকার প্রকরণ
  5. অর্থতত্ত্ব
  6. অভিধানত্ত্ব

১ম তিনটি সাধারণ আলোচনার বিষয়, পরের তিনটিসহ ৬টি সার্বিক আলোচনার বিষয়।

বাংলা বর্ণমালাঃ

 

স্বরবর্ণ ১১ টি                
অ (o) আ (a) ই (i) ঈ (I) উ (u) ঊ (U) ঋ (rri) এ (e) ঐ (OI) ও (O)
ঔ (OU)                  
ব্যঞ্জনবর্ণ ৩৯টি                
ক (k) খ (kh) গ (g) ঘ (gh) ঙ (Ng) চ (c) ছ (ch) জ (j) ঝ (jh) ঞ (NG)
ট (T) ঠ (Th) ড (D) ঢ (Dh) ণ (N) ত (t) থ (th) দ (d) ধ (dh) ন (n)
প (p) ফ (ph) ব (b) ভ (v) ম (m) য (z) র (r) ল (l) শ (sh) ষ (Sh)
স (s) হ (h) ড় (R) ঢ় (Rh) য় (y) ৎ (t“) ং (ng) ঃ (:) ঁ (^)  

 

স্বরবর্ণের সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে ‘কার’ যেমন আ= া ( আ-কার), ই= ি (ই -কার), ঈ= ী (ঈ- কার), উ= ু (উ- কার), ঊ= ূ (ঊ- কার), ঋ= ৃ (ঋ-কার), এ= ে (এ-কার), ঐ= (ৈ কার), ও= ো (ও-কার), ঔ= ৌ (ঔ-কার)।

ব্যঞ্জনবর্ণের সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে ‘ফলা’ যেমনঃয= ন্যায্য (য-ফলা যুক্ত শব্দ),  র= ট্রাক (র ফলা যুক্ত শব্দ), ব= নিঃস্ব (ব ফলা যুক্ত শব্দ), র= নির্ভর (র ফলা/রেফ যুক্ত শব্দ), ম= জন্ম ( ম ফলা যুক্ত শব্দ), ন= নিম্ন (ন ফলা যুক্ত শব্দ), ল= কল্লোল (ল ফলা যুক্ত শব্দ)।

মৌলিক স্বরধ্বনি ৭ টি (অ,আ,ই,উ,এ, অ্যা,ও)

পূর্ণমাত্রা বিশিষ্ট বর্ণঃ ৩২ টি (২৬ টি  ব্যঞ্জনবর্ণ + ৬ টি স্বরবর্ণ)

অর্থমাত্রা বিশিষ্ট বর্ণঃ ৮টি (৭ টি ব্যঞ্জনবর্ণ + ১টি স্বরবর্ণ)

মাত্রাহীন বর্ণঃ ১০ টি (৬ টি ব্যঞ্জনবর্ণ + ৪টি স্বরবর্ণ)

পরাশ্রিত বর্ণঃ ৎ , ং , ঁ , ঃ

 

Leave a Reply